মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

পূর্ববর্তী মামলার রায়

১২ নং শৈলগাছী ইউনিয়ন পরিষদ

উপজেলা ও জেলাঃ নওগাঁ সদর।

মোকর্দ্দমা অর্ডার সীট

 

বাদী                                                                                                                     বিবাদী-

মোছাঃ আরজিনা খাতুন                                                                                            মোঃ জুয়েল হোসেন

মোকর্দ্দমার নং

তারিখ

যে আদেশ  দেওয়া হইল

বিচারকের স্বাÿর

পÿগনের স্বাÿর

১১/১৯

২৭-১০-২০১৯

অদ্য বাদী ও বিবাদী উপস্থিতিতে বাদী ও বিবাদী উভয়ের কাগজ পত্র তদমত্ম করে দেখা যায় যে, বাদীর দাবী সত্য না। তাদের কাগজ অনুযায়ী জমির মালিকেরা তাদের সুবিধার জন্য ৩ (তিন) দাগ বিক্রয় করে এবং ১ (এক) দাগে দখল দেয় এবং সেই থেকে যে যতটুকু ক্রয় করে ও সেই অনুযায়ী সে জায়গায় দখল করে। দীর্ঘ ২৮ থেকে  ৩০ বছর  ধরে সবাই আপোষে সুখ শামিত্মতে বসবাস করে। হঠাৎ করে আরজুয়ারা   জমি বিক্রয়  করে এবং তা আবু সাঈদ নামে  একজন ক্রয় করে এবং সেই থেকে এই বিরোধ সৃষ্টি হয়। তার  কারন সে পূর্বের  দলিল গোপন করে তার সুবিধা অনুযায়ী উক্ত দলিলে পূর্ব সাইডে মার্কিং  করে গ্রামের  সাদাসিদে লোকদেরকে সুন্দর করে বুঝিয়ে বর্তমান বিবাদীর কাছ থেকে কৌশলে তাদেরকে সাদা কাগজে সহি করে নিয়ে তারাতারি অল্প সময়ের মধ্যে মার্কেটের গেটবিম দেয় । এই মার্কেটের গেটবিম দেওয়ার তিন দিন পর প্রথম গোপন করা দলিল বিবাদী খোঁজে বের করে। দলিলে পশ্চিম সাইডে উলেস্নখ আছে,  এই  দলিল বের হবার পর  থেকে আর এক ইঞ্চি কাজও করতে দেন নি বিবাদী। এর পর দফায় দফায় মিটিং হয়।  কিন্তু কোন রকম মিমাংসা হয় না । বেশ কিছু দিন পর সেই আবু সাঈদ নামের লোকটি তার স্থাপনা ৬,০০,০০০/- (ছয় লÿ ) টাকায়  বিক্রয় করে এবং ৩০০ (তিনশত টাকার) ষ্ট্যাম্পে । উক্ত ষ্ট্যাম্পে বিসত্মারিত বর্ননা দেওয়া আছে , এবং বিবাদী সেই স্থাপনা ক্রয় করার পর মাটি দ্বারা ভরাট করে এবং স্থাপনার উপর আর সিসি পিলার তৈরি করে । এই আর সিসি  পিলার তৈরির বেশ কিছুদিন পর সেই আবু সাঈদ এর জমি বাদীর কাছে বিক্রয় করে, স্থাপনা বিবাদীর কাছে ।

 সিন্ধামত্ম-  গ্রাম আদালতে সার্বিক কাগজপত্র পর্চালোচনা করে দেখা যায় যে, বাদী  ও বিবাদীর কেনা বেচা সঠিক। দখলী অংশ নিয়ে মূলত বিবাদ , কারণ দাগ নং অনুযায়ী দখলী অংশে কেউ অবস্থান করছে না, যার কারনে এ বিবাদ। বিধায় শামিত্ম শৃঙ্খলার জন্য গ্রাম আদালত স্থানীয় মাতববর প্রধান এবং বাদীর প্রতিনিধি- ১) আবু জাফর, ২) ইসমাইল বিবাদীর প্রতিনিধি- মোঃ আতাউল হক আতা, ২) সামসুর ইসলাম (মন্টু) উপস্থিতি ও সম্মতিতে  এই নকশা  অনুযায়ী  দখলের জন্য আদেশ প্রদান করছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

এ নকশা অনুযায়ী অবস্থান করলে ভবিষ্যতে কোন দ্বন্ধ ফ্যাসাদ থাকবে না।

 

 

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter